লতিফ সিদ্দিকীর বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন এরশাদ অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবী

 

প্রেসবিজ্ঞপ্তি

ঢাকা, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৪ :
পবিত্র হজ ও তাবলীক সম্পর্কে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর মন্তব্যে তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। পবিত্র ইসলামকে অবমাননা করে বক্তব্য প্রদান করায়- সংবিধান লঙ্ঘন এবং মুসলীম জনগোষ্ঠীর ধর্মীয় অনুভুতিকে আঘাত করার জন্য লতিফ সিদ্দিকীর অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ।

আজ এক বিবৃতিতে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ বলেন, ইসলামের ৫টি স্তম্ভের অন্যতম স্তম্ভ হজ্ব- তা নিয়ে লতিফ সিদ্দিকী যে জঘন্য ও কুৎসিত মন্তব্য করেছেন তার নিন্দা প্রকাশেরও ভাষা আমার জানা নেই। হজ্বের ব্যাপারে আজ পর্যন্ত অন্য কোন ধর্মাবলম্বীরাও এধরণের কুৎসিত মন্তব্য করেনি। সেখানে বাংলাদেশের মতো একটি মুসলিম অধ্যুসিত দেশে- যেখানে ৯০ ভাগই মুসলিম জনগোষ্ঠী- তাদের ধর্মীয় বিশ্বাসে আঘাত হানার মতো লতিফ সিদ্দিকী যে জঘন্য কাজ করেছেন তা এদেশের জনগণ কখনো এবং কোনভাবেই মেনে নেবে না।


এধরণের জঘন্য কথা বলে তিনি শুধু বাংলাদেশের মানুষের মনেই নয়-বিশ্বের কোটি কোটি মুসলমানের ধর্মীয় অনুভূতি ও বিশ্বাসের উপরে চরম আঘাত হেনেছেন। এর জন্য শুধু ক্ষমা চাইলেই হবেনা- তার জন্য দেশের প্রচলিত আইনে তার বিচার এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির বিধান করতে হবে। সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ বলেন, যেখানে দেশের রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম এবং সংবিধান অনুসারে কোনো সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত করা যাবেনা- সেখানে এই লতিফ সিদ্দিকী ধর্মীয় অনুভূতিকে আঘাত করে সরাসরি সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন। তাই সংবিধান লঙ্ঘনের দায়ে তাকে অভিযুক্ত করতে হবে।

বিবৃতিতে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ বলেন, দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেখানে একজন ধর্মপ্রাণ মুসলিম নারী, তিনি বহুবার হজ্ব পালন করেছেন। সেখানে লতিফ সিদ্দিকীর এই উক্তির মাধ্যমে প্রধানন্ত্রীর ধর্ম বিশ্বাসের উপরেও চরম আঘাত হেনেছেন। তিনি আরও বলেন, বিশ্ব ইজতেমার মাঠের বরাদ্দ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানই দিয়ে গেছেন। তাবলীকের প্রতি বঙ্গবন্ধুর যে শ্রদ্ধা ছিল এব্যাপারে তাঁর পৃষ্ঠপোষকতায় তার সুস্পষ্ট প্রমাণ। সেই তাবলীক সম্পর্কেও লতিফ সিদ্দিকী কটুক্তি করেছেন। এই বক্তব্য দিয়ে লতীফ সিদ্দিকী ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ করেছেন। অবিলম্বে তাকে মন্ত্রী পরিষদ থেকে বহিস্কার করে গ্রেফতার করতে হবে।

Last Updated (Tuesday, 30 September 2014 14:31)